তরুণ ফ্রিল্যান্সার তৈরি করবে সরকার

টিবিটি ডেস্ক
টিবিটি রিপোর্ট
প্রকাশিত: ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ০১:৪১ এএম

আগামী তিন বছরে দেশে প্রায় ২৯ হাজার তরুণ ফ্রিল্যান্সার তৈরি করবে সরকার। ফ্রিল্যান্সিং প্রশিক্ষণ নিয়ে তরুণেরা দেশে থেকেই বিদেশি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কাজ করতে পারবেন। বদৌলতে বিদেশি মুদ্রা তাঁরা আয় করবেন। এই প্রশিক্ষণ নিতে কোনো টাকা পয়সা লাগবে না; বরং উল্টো দৈনিক মোট ৫০০ টাকা করে ভাতা পাবেন তাঁরা।

সরকারের নতুন এই প্রকল্পে সব মিলিয়ে খরচ হবে ৩০০ কোটি টাকা। এটির নাম ‘দেশের ৪৮টি জেলায় শিক্ষিত কর্মপ্রত্যাশী যুবদের ফ্রিল্যান্সিং প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কর্মসংস্থান সৃষ্টি প্রকল্প’। প্রকল্পের মেয়াদ চলতি ২০২৪ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২৬ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত। সম্পূর্ণ দেশীয় অর্থে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হবে।

প্রকল্পটি অনুমোদনের জন্য আজ মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় তোলা হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠেয় একনেক সভায় সব মিলিয়ে ১০টি প্রকল্প উঠতে পারে অনুমোদনের জন্য।

আড়াই বছর আগে ১৬ জেলার জন্য এমন আরেকটি প্রকল্প নেওয়া হয়েছিল। নতুন প্রকল্পটি পাস হলে দেশের সব জেলাতেই ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ে প্রশিক্ষণের সুবিধা বিস্তৃত হবে। যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে।

এ বিষয়ে বেসরকারি গবেষণাপ্রতিষ্ঠান সাউথ এশিয়ান নেটওয়ার্ক অন ইকোনমিক মডেলিংয়ের (সানেম) নির্বাহী পরিচালক সেলিম রায়হান বলেন, উদ্যোগটি বেশ ভালো। তবে অতীতের অভিজ্ঞতায় দেখা গেছে, সরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রশিক্ষণ নিয়ে পরে তরুণেরা তা আর কাজে লাগাতে পারেননি। এবার ফ্রিল্যান্সিং প্রশিক্ষণ নিয়ে তরুণ-তরুণীরা কী ধরনের কাজ করছেন, তার ওপর তদারকি রাখা উচিত।

যেভাবে প্রশিক্ষণ পাওয়া যাবে

এই প্রশিক্ষণ দিতে প্রতিটি জেলায় ২৫টি কম্পিউটার ও হাইস্পিড ইন্টারনেট-সংবলিত দুটি ল্যাব স্থাপন করা হবে। প্রতিটি ল্যাবে ২৫ জন করে প্রশিক্ষণার্থী প্রশিক্ষণের সুযোগ পাবেন। প্রতি জেলায় একেক ব্যাচে ৫০ জন প্রশিক্ষণার্থী ভর্তি হওয়ার সুযোগ পাবেন। 

এ জন্য অনলাইনে আবেদন করতে হবে। প্রশিক্ষণ নিতে আগ্রহীদের শিক্ষাগত যোগ্যতা এইচএসসি পাস। ১৮ থেকে ৩৫ বছর বয়সী নারী-পুরুষেরা আবেদন করতে পারবেন। লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার পর প্রশিক্ষণার্থী চূড়ান্ত করা হবে।

প্রশিক্ষণার্থীদের বিনা মূল্যে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। তিন মাসের এই প্রশিক্ষণকালে প্রত্যেকে দৈনিক ২০০ টাকা করে ভাতা পাবেন। আর খাবারের জন্য দৈনিক ৩০০ টাকা হারে দেওয়া হবে। এভাবে সারা দেশে সব মিলিয়ে ২৮ হাজার ৮০০ জন ফ্রিল্যান্সার তৈরি করা হবে, যাঁদের অর্ধেকই হবেন নারী।

এ বিষয়ে পরিকল্পনা কমিশনের আর্থসামাজিক অবকাঠামো বিভাগের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা প্রথম আলোকে জানান, ফ্রিল্যান্সিংয়ের মাধ্যমে তরুণসমাজের কর্মসংস্থানের জন্য সুযোগ সৃষ্টি করা হবে। এতে কর্মসংস্থান বাড়বে।